অনুসন্ধান - অন্বেষন - আবিষ্কার

চট্টগ্রাম একুশে মেলায় ২৩ দিনে সাড়ে ৪ কোটি টাকার বই বিক্রি

0
.

চট্টগ্রামে শেষ হলো একুশে বইমেলা। নগরীর সিআরবি শিরীষতলায় ২৩ দিনব্যাপী এ মেলায় সাড়ে ৪ কোটি টাকার বই বিক্রি হয়েছে। যা গত বছরের চেয়ে দেড় কোটি টাকা বেশি, ২০২৩ সালে ২ কোটি ৯৫ লাখ টাকার বই বিক্রি হয়েছিল।

শনিবার (২ ফেব্রুয়ারী) রাতে বই মেলা শেষ হয়।

জানা যায়, ২০১৯ সাল থেকে সম্মিলিত বইমেলার আয়োজন করে আসছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক)। একুশে বইমেলা প্রতিবছর নগরীর এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেশিয়াম মাঠে মেলা হলেও এবার সিআরবি শিরীষতলায় আয়োজন করা হয়। ফলে খোলামেলা পরিবেশে পাঠক ও দর্শক সমাগমও বেশি হয়েছে। এবারের বইমেলা বাস্তবায়নে সহযোগিতা করেছে চট্টগ্রাম সৃজনশীল প্রকাশক পরিষদ।

চট্টগ্রামের বইমেলায় ঢাকা এবং চট্টগ্রামের ৯২ প্রকাশনা সংস্থার ১৫৫টি স্টল ছিল। এবারের মেলা ঘিরে নতুন বই প্রকাশ হয় ৪০৫টি। এর মধ্যে বেশিরভাগই ছিল প্রবন্ধের। গল্প, উপন্যাস ও কাব্যগ্রন্থের সংখ্যা কম।

ঢাকার প্রকাশকরা বই বিক্রি নিয়ে সন্তুষ্টির কথা বললেও চট্টগ্রামের কয়েকজন প্রকাশক আগের তুলনায় বিক্রি কম হয়েছে বলে জানান।

চট্টগ্রামের এমিলিয়া প্রকাশনের আবছার উদ্দিন লিটন বলেন, জিমনেশিয়াম মাঠের মেলায় শেষের পাঁচ দিন গড়ে অন্তত পাঁচ হাজার টাকার বই বিক্রি হতো। এবার দুই হাজার টাকার বইও বিক্রি হয়নি।

চট্টগ্রাম সৃজনশীল প্রকাশক পরিষদের সভাপতি মো. সাহাব উদ্দীন হাসান বাবু বলেন, চার বছরের ধারাবাহিকতা ভেঙে নতুন জায়গায় এবার বইমেলা হয়েছে। এ কারণে সফলতার ব্যাপারে প্রকাশকদের মাঝে প্রাথমিক শঙ্কা থাকলেও পহেলা ফাল্গুন ও একুশে ফেব্রুয়ারির পর লেখক-পাঠকসহ সর্বস্তরের দর্শনার্থীর উপচেপড়া ভিড়ে বই বিকিকিনি ভালো হয়েছে। আগামীতে ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম দিনই মেলা আয়োজনে চট্টগ্রাম সৃজনশীল প্রকাশক পরিষদ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনকে সর্বতোভাবে সহযোগিতা করবে।

চট্টগ্রাম সৃজনশীল প্রকাশক পরিষদের সংগঠক কবি আইয়ুব সৈয়দ বলেন, বই বিক্রি ভালোই হয়েছে। সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছে পহেলা বসন্তে। এ দিন প্রায় ১১ লাখ ৫৮ হাজার টাকার বই বিক্রি হয়। সবচেয়ে কম ২ লাখ ১৮ হাজার টাকার বই বিক্রি হয়েছে শবে বরাতের দিন।

বইমেলার আহ্বায়ক ও চসিক কাউন্সিলর ড. নিছার উদ্দিন আহমদ মঞ্জু বলেন, এবার ২৩ দিনের বইমেলা অত্যন্ত গুছানো ছিল। মেলায় প্রতিদিন মানুষের ভিড় অন্য যেকোনো বছরের তুলনায় বেশি হয়েছে। মোট সাড়ে ৪ কোটি টাকার বই বিক্রি হয়। নতুন জায়গায় মেলা সফল হয়েছে। প্রকাশকরা শুরুতে শঙ্কায় ছিলেন। শেষ পর্যন্ত বিক্রিও ভালো হয়েছে। তাই প্রকাশকরাও খুশি। সিআরবি শিরীষতলায় এবারের আয়োজন হওয়ায় প্রকৃতি ও বই মানুষকে বেশি আকর্ষণ করেছে। ধুলোবালি ছিল না। কেউ কেউ নিরাপত্তার শঙ্কা করলেও প্রথম থেকে শেষ দিন পর্যন্ত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। একটি বইও কোনো স্টল থেকে চুরি যায়নি। প্রতিদিনের আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বেশ মানসম্মত ছিল। বৃষ্টির উৎপাতও ছিল না।

মেলা কমিটির সদস্য সচিব চট্টগাম সিটি কর্পোরেশনের শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল হাসেম বলেন, এবারের বইমেলায় দর্শনার্থীর কমতি ছিল না। তবে বইপ্রেমী বা প্রকৃত পাঠকের সংখ্যা দর্শনার্থীর তুলনায় সীমিত ছিল। বিগত মেলাগুলোর তুলনায় দর্শকের উপচে পড়া ভিড় থাকলেও ডিজিটাল অগ্রগতির কারণেই হয়তো প্রত্যাশিত মাত্রায় বই ক্রেতা ছিল না। এবারের বইমেলায় চার শতাধিক নতুন বই এসেছে। নিরাপত্তার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা ছিল। আগামীতে এই মেলায় আগরতলা, পশ্চিমবঙ্গ ও আসামের বাংলাভাষী প্রথিতযশা কবি-সাহিত্যিক ও সংস্কৃতিকর্মীদের আমন্ত্রণ জানানো হবে। ওই দেশের প্রকাশকদের বিশেষ সুবিধা দিয়ে মেলায় আসার জন্য উৎসাহিত করা হবে। এতে মেলার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি এবং ব্যাপ্তি বৃদ্ধি পাবে।

মেলায় জাতীয় জীবনে কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য ১৬ জনকে একুশে সম্মাননা স্মারক পদক ও সাহিত্য পুরস্কার দেওয়া হয়। মেলা মঞ্চে প্রতিদিন নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন এবং বিষয়ভিত্তিক আলোচনা হয়। গত ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে অমর একুশের বইমেলা শুরু হয়।

এবার সেরা স্টল হিসেবে অক্ষরবৃত্ত প্রকাশনী প্রথম, বাতিঘর প্রকাশনী দ্বিতীয়, প্রথমা ও বিদ্যানন্দ যৌথভাবে তৃতীয় পুরস্কার অর্জন করেছে।